• Thursday, ২৯ অক্টোবর, ২০২০
  • ১১:১২
শিরোনাম

শপথ নিয়েছেন নতুন মন্ত্রীরা

আজ সোমবার বিকেল ৩টা ৪৬ মিনিটে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ মন্ত্রীদের শপথবাক্য পাঠ করান।

শপথ নিয়েছেন নতুন মন্ত্রীরা। এই মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রয়েছেন শেখ হাসিনা। এ ছাড়া রয়েছেন মন্ত্রী ২৪ জন, প্রতিমন্ত্রী ১৯ জন ও উপমন্ত্রী ৩ জন।

আজ সোমবার বিকেল ৩টা ৪৬ মিনিটে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ মন্ত্রীদের শপথবাক্য পাঠ করান।

তার আগে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনা শপথ নিলেন চতুর্থবারের মতো।

মন্ত্রী হিসেবে যারা শপথ নিলেন তারা হলেন- আ ক ম মোজাম্মেল হক (মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী), ওবায়দুল কাদের (সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী), ড. আবদুর রাজ্জাক (কৃষিমন্ত্রী), আসাদুজ্জামান খান কামাল (স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী), ড. হাছান মাহমুদ (তথ্যমন্ত্রী), আনিসুল হক (আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী), আ হ ম মুস্তফা কামাল (অর্থমন্ত্রী), তাজুল ইসলাম (এলজিআরডি), ডা. দীপু মনি (শিক্ষামন্ত্রী), ড. আবদুল মোমেন (পররাষ্ট্রমন্ত্রী) আবদুল মান্নান (পরিকল্পনামন্ত্রী), নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন (শিল্পমন্ত্রী), গোলাম দস্তগীর গাজী (বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী), জাহেদ মালেক স্বপন (স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী), সাধনচন্দ্র মজুমদার (খাদ্যমন্ত্রী), টিপু মুনশি (বাণিজ্যমন্ত্রী), নুরুজ্জামান আহমেদ (সমাজকল্যাণমন্ত্রী), শ ম রেজাউল করিম (গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী), শাহাব উদ্দিন (পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী), বীর বাহাদুর উশৈ সিং (পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী), সাইফুজ্জামান চৌধুরী (ভূমিমন্ত্রী), নুরুল ইসলাম সুজন (রেলপথমন্ত্রী), স্থপতি ইয়াফেস ওসমান (বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী), মোস্তাফা জব্বার (ডাক ও টেলিযোগাযোগ তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী)।

নতুন মন্ত্রিসভায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রী নিজের কাছে রেখেছেন। (নয়া দিগন্ত অনলাইন )

শেয়ার

প্রাসঙ্গিক সংবাদ

চট্টগ্রামের ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তা বৃদ্ধির নির্দেশনা

চট্টগ্রামের ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তা বৃদ্ধির নির্দেশনা

চট্টগ্রামের ১৬টি সংসদীয় আসনের ১৮শ' ৯৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১৪শ' ১৪টি ভোট কেন্দ্রকে গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। প্রার্থীর অবস্থান এবং দুর্গম এলাকা বিবেচনা করে এই কেন্দ্রগুলো চিহ্নিত করা হয়।